Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

১)পল্লী সমাজসেবা কার্যক্রম (আর এস এস): মূলবিনিয়োগঃসংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন সমাজকর্মী ১ (এক) মাসের মধ্যে প্রকল্প গ্রামে জরীপের (বেস লাইন সার্ভের) মাধ্যমে‌ ক, শ্রেনীভূক্ত ( দরিদ্র পরিবার যাদের মাথাপিছু  বার্ষিক গড় আয় ৫০০০০/- টাকা) পরিবার হতে ১০-২০ জনের দল গঠনপূর্বক তাদের পেশাভিত্তিক আয়বর্ধক স্কীম প্রণয়ন করে ফিল্ডসুপারভাইজার এর মাধ্যমে উপজেলা সমাজসেবা অফিসারের নিকট দাখিল করবেন এবং সমাজসেবা অফিসার ৭ (সাত) দিনের মধ্যে প্রদত্ত স্কীম যাচাইবাছাই করে পল্লী সমাজসেবা কার্যক্রম বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) সভায় উপস্থাপন  ও অনুমোদন গ্রহন প্রভৃতি কার্যক্রম সম্পাদন পূর্বক সংশ্লিষ্ট  গ্রামে গিয়ে ঋণ বিতরণ করবেন এবং কিস্তি অনুযায়ী উক্ত ঋন আদায়ের ব্যবস্থা  গ্রহন করবেন।

পূনঃবিনিয়োগঃসংশ্লিষ্ট উপজেলা সমাজসেবা অফিসার বিনিয়োগকৃত ঋনের ৮০% আদায় হলে তিনি ১ (এক) মাসের মধ্যে উল্লিখিত প্রক্রিয়ায় পুরাতন ঋণ গ্রহীতাদের মাঝে অথবা নতুন দল গঠনের মাধ্যমে পুনঃবিনিয়োগ করবেন। তবে একজন ঋণ গ্রহীতা ৩ বারের বেশী ঋণ পাবেন না। এ প্রক্রিয়া চলমান থাকবে। বরাদ্দ প্রাপ্ত মূল অর্থ ঘূর্ণায়মান তহবিল হিসাবে ব্যবহ্নত হবে।

 ২) বিশেষ বরাদ্দপ্রাপ্ত ঘূণার্য়মান তহবিলঃ উল্লিখিত (একই) প্রক্রিয়ায় দরিদ্র পরিবারের সদস্য-সদস্যাদের মাঝে সহজশর্তে ঋণ বিতরণ করা হয়ে থাকে এবং বরাদ্দ প্রাপ্ত মূল  অর্থ ঘূর্ণায়মান তহবিল হিসাবে ব্যবহ্নত হবে।

৩) পল্লী মাতৃকেন্দ্রের মাধ্যমে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রন কার্যক্রমঃ    উল্লিখিত (একই) প্রক্রিয়ায় লক্ষ্যভূক্ত দরিদ্র পরিবারের মহিলা সদস্যাদের জন্য এ কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য যে, ইউনিট পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলা/শহর সমাজসেবা অফিসার প্রত্যেক অর্থ বছরের ১৫ জুলাই এর  মধ্যে  একটি বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা প্রনয়নপূর্বক পিআইসি এর অনুমোদনক্রমে উপ-পরিচালক এর মাধ্যমে সদর দফতরে প্রেরণ করবেন এবং বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবেন।

৪) সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কার্যক্রমঃ

ক) মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা প্রদান কার্যক্রমঃ মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার বিধবা স্ত্রী যার বার্ষিক আয় ২৪,০০০ (চব্বিশ হাজার) টাকার উর্দ্ধে  নয় এবং মুক্তিযোদ্ধা বলতে জাতীয় ভাবে প্রকাশিত ৪ (চার) টি তালিকার মধ্যে কমপক্ষে দুটি তালিকায় অথবা গেজেটে যাদের নাম আছে বা বি.এফ.এফ./ সশস্ত্র বাহিনী এবং বাংলাদেশ রাইফেলস হতে প্রাপ্ত  মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় যাদের নাম অন্তর্ভক্ত আছে বা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক মুক্তিযোদ্ধা সনদপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা। এক্ষেত্রে কর্মক্ষম নন বা আংশিক কমক্ষম/ ভূমিহীন /কর্মহীন/সহায় সম্বলহীন মুক্তিযোদ্ধাগণ অগ্রাধিকার পাবেন।বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সবোর্চ্চ ১ (এক) মাসের মধ্যে নতুন ভাতাভোগী নির্বাচনসহ ভাতা বিতরণের ব্যবস্থা করা হয় । মুক্তিযোদ্ধা সম্মানীভাতা প্রতিমাসে প্রদান করা হয়। তবে কেউ ইচ্ছা করলে একাধিক মাসের ভাতা একত্রে উত্তোলন করতে পারেন।ভাতাভোগীর নামে  তপসীলভূক্ত ব্যাংকে ১০ (দশ)  টাকায় সঞ্চয়ী হিসাব খোলার মাধ্যমে উক্তমুক্তিযোদ্ধাভাতাভোগীর ব্যাংক হিসাবে ভাতা প্রদান করা হয়।                                                       

খ) বয়স্ক ভাতা প্রদান কার্যক্রমঃ বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষ্যে অনাধিক ১ (এক) মাসের মধ্যে ব্যাপক প্রচারের মাধ্যেম ৬৫ (পয়ষট্টি) বছরের উর্দ্ধে দরিদ্র বয়স্ক/বয়স্কা ব্যক্তিদের নিকট থেকে দরখাস্ত আহ্বায়ন করা হয়। প্রাপ্ত আবেদনসমূহ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কমিটি সুপারিশসহ উপজেলা /পৌরসভা বয়স্ক ভাতা বিতরণ কমিটিতে দাখিল করবেন এবং বর্ণিত কমিটির অনুমোদন ক্রমে প্রত্যেক বয়স্ক ভাতাভোগীর নামে  তপসীলভূক্ত ব্যাংকে ১০ টাকা সঞ্চয়ী হিসাব খোলার মাধ্যমে উক্ত বয়স্ক ভাতাভোগীর ব্যাংক হিসাবে বয়স্ক ভাতা প্রদান করা হয়। মৃত্যুজনিত/অন্য কোন কারণে উক্ত প্রক্রিয়ায় বয়স্ক ভাতাভোগীর পরির্বতে দ্রুত প্রতিস্থাপন এর জন্য একটা অপেক্ষামান তালিকা প্রস্তুত করা হয় । এ সকল প্রক্রিয়া বরাদ্দ প্রাপ্তির অনুদ্র্ধ  ১ (এক) মাসের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

গ ) বিধবা  ওস্বামীপরিত্যাক্তা দুঃস্থ মহিলাভাতা কার্যক্রমঃ  বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষ্যে অনাধিক ১ (এক) মাসের মধ্যে ব্যাপক প্রচারের মাধ্যেম অস্বচ্ছল বিধবা  ব্যক্তিদের নিকট থেকে দরখাস্ত আহ্বায়ন করা হয়।প্রাপ্ত আবেদনপত্র সমূহ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কমিটি সুপারিশসহ উপজেলা সমাজসেবা অফিসার /পৌরসভা বিধবা  ভাতা বিতরণ কমিটিতে দাখিল করবেন। বর্ণিত বমিটির ব অনুমোদন ক্রমে প্রত্যেক বিধবা/ স্বামী পরিত্যক্তা মহিলা  ভাতাভোগীর নামে  তপসীলভূক্ত ব্যাংকে ১০ টাকা সঞ্চয়ী হিসাব খোলার মাধ্যমে উক্ত বিধবা  ভাতাভোগীর ব্যাংক হিসাবে বিধবা  ভাতা প্রদান করা হয়। মৃত্যুজনিত/অন্য কোন কারণে  বিধবা  ভাতাভোগীর পরির্বতে দ্রুত প্রতিস্থাপন এর জন্য একটা অপেক্ষামান তালিকা প্রস্তুত করা হয়। এ সকল প্রক্রিয়া বরাদ্দ প্রাপ্তির অনুদ্র্ধ  ১ (এক) মাসের মধ্যে সম্পন্ন করা  হয় ।

ঘ)    অস্বচছল প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ভাতা প্রদান কার্যক্রমঃবরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষ্যে অনাধিক ১ (এক) মাসের মধ্যে ব্যাপক প্রচারের মাধ্যেম প্রতিবন্ধী  ব্যক্তিদের নিকট থেকে দরখাস্ত আহ্বায়ন করা হয়। আবেদনপত্র সমূহ সংশ্লিষ্ট ইউ,পি চেয়ারম্যান/ওয়ার্ড সদস্য/সদস্যাদের সুপারিশসহ  সমাজসেবা অফিসার বরাবর দাখিল করবেন। সমাজসেবা অফিসার উপজেলা/পৌরসভা অস্বচছল প্রতিবন্ধী  ভাতা বিতরণ কমিটির অনুমোদন ক্রমে প্রত্যেক প্রতিবন্ধী  ভাতাভোগীর নামে  তপসীলভূক্ত ব্যাংকে ১০ টাকা সঞ্চয়ী হিসাব খোলার মাধ্যমে উক্ত প্রতিবন্ধী  ভাতাভোগীর ব্যাংক হিসাবে প্রতিবন্ধী  ভাতা প্রদান করবেন। মৃত্যুজনিত/অন্য কোন কারণে উক্ত প্রক্রিয়ায় মৃত্যূজনিত প্রতিবন্ধী  ভাতাভোগীর পরির্বতে দ্রুত প্রতিস্থাপন এর জন্য একটা অপেক্ষামান তালিকা প্রস্তুত করবেন।এ সকল প্রক্রিয়া বরাদ্দ প্রাপ্তির অনুদ্র্ধ  ১ (এক) মাসের মধ্যে সম্পন্ন হয়।

 ঙ) প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপবৃত্তি প্রদান কার্যক্রমঃশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ৫ বছর বয়সের ঊর্দ্ধে প্রতিবন্ধী ছাত্র ছাত্রী যাদের বার্ষিক মাথাপিছু পারিবারিক আয় ৩৬,০০০ (ছত্রিশ হাজার)  টাকার নিচে। বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সবোর্চ্চ ৩ (তিন) মাসের মধ্যে নতুন  উপবৃত্তি গ্রহনকারী নির্বাচনসহ উপবৃত্তি বিতরণ এবং নিয়মিত ভাবে শিক্ষাকালীন সময়ে।

         

প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের ৪ (চার) টি স্তরে বিভক্ত করে নিম্নরুপ হারে উপবৃত্তির প্রদান করা হয়-

১। প্রাথমিক স্তর (১ম-৫ম শ্রেনী): জনপ্রতি মাসিক ৩০০ (তিনশত) টাকা।

২। মাধ্যমিক স্তর(৬ষ্ঠ-১০ম শ্রেনী): জনপ্রতি মাসিক ৪৫০ (চারশত পঞ্চাশ) টাকা।

৩। উচ্চ মাধ্যমিক স্তর (একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনী):  জনপ্রতি মাসিক ৬০০ (ছয়শত) টাকা ।

৪। উচ্চতর স্তর (স্নাতক ও স্নাতকোত্তর): জনপ্রতি মাসিক ১০০০ (এক হাজার) টাকা।                                                               

চ) প্রতিবন্ধীতা সনদপ্রত্র প্রদান কার্যক্রমঃপ্রতিবন্ধী সনদপত্র পেতে সংশ্লিষ্ট উপজেলা/শহর সমাজসেবা কার্যালয়  হতে আবেদন ফরম সংগ্রহ করে পূরনপূর্বক আবেদন পত্রের সাথে নিম্নে বর্ণিত তথ্যাদি/কাগজ পত্রাদিসহ জেলা সমাজসেবা কার্যালয়, নটোরেদাখিল করতে হবে।

১) সংশ্লিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার প্রদত্ত্ব প্রতিবন্ধীতা সনাক্তকরণ সনদপত্র ।

২) জন্ম নিবন্ধন/ভোটার আইডি কার্ডের সত্যায়িত ফটোকপি।

৩) ছবি ৩ (তিন) কপি ।

৪) স্থানীয় চেয়ারম্যান কর্তৃক নাগরিক সনদ।

 ৫)শহর সমাজসেবা কার্যক্রমঃউল্লিখিত (পূর্বে বর্ণিত) প্রক্রিয়ায় প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে নিম্নলিখিত কার্যক্রমগুলো জেলা পর্যায়েরে তথা সিরাজগঞ্জ পৌরসভায় চলমান আছে ।

ক) সূদমুক্ত ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রমঃ

খ) সামাজিক নিরাপত্তা  বেষ্টনীমূলক কর্মসূচীঃ

গ)   প্রশিক্ষণ কর্মসূচীঃ শহর এলাকার শিক্ষিত, অর্ধ শিক্ষিত বেকার যুবক ও যুব মহিলাদের আত্নকর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে শহর সমাজসেবা কার্যালয় ৩ (তিন) ও ৬ (ছয়) মাস মেয়াদি কম্পিউটার  ও ইন্টারনেট   এবং দর্জি বিজ্ঞান প্রশিক্ষণ কোর্স চলমান আছে।

প্রতি ৩ মাস এবং ৬ মাস পর পর বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয় এবং ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে প্রশিক্ষনার্থী নির্বাচন করা হয়।                  

৬) এ্যাসিডদগ্ধ ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের পুর্নবাসন কার্যক্রমঃ  নির্ধারিত ফরমে যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ করে আবেদনের পর-  ১ম বার ঋণ (বিনিয়োগ) গ্রহনের জন্য আবেদনের পর ১ (এক) মাসের মধ্যে। ২য়/৩য় পর্যায়ের ঋণ (পুনঃবিনিয়োগ) গ্রহণ এর জন্য আবেদনের পর ২০ (বিশ) দিনের মধ্যে। উক্ত ঋন যাদের ক্ষেত্রে প্রাপ্য যাহারা  এসিডদগ্ধ ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তি যাদের বাৎসরিক আয় ২০,০০০ (বিশ হাজার) টাকার নিচে। ঋনের পরিমান ৫,০০০ (পাঁচ হাজার) থেকে ১৫,০০০ (পনের হাজার) টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়।

৭) হাসপাতাল সমাজসেবা কার্যক্রমঃ  অসহায় ও দরিদ্র রোগী চিহ্নিত হওয়া বা রোগী আবেদন করার পর তাৎক্ষনিক ভাবে সংশ্লিষ্ট ডাক্তার (আর.এম.ও) এর সুপারিশক্রমে  চিকিৎসার জন্য ঔষধ ও পথ্য  প্রদান করা হয় ।  হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা প্রাপ্তিতে সহায়তা ও দিক নিদের্শনা প্রদান।  দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের ঔষধ, রক্ত, পথ্য, বস্ত্র, চশমা, কৃত্রিম অঙ্গ প্রদানসহ বিভিন্ন চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহ। দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের প্রয়োজনে পুষ্টিকর খাবার সরবরাহ। অবাঞ্চিত ও পরিত্যাক্তা শিশুদের পুনর্বাসন। হাসপাতালে অবস্থানরত রোগীদের চিত্ত বিনোদনের ব্যবস্থা করা।  চিকিৎসার প্রয়োজনে রোগীকে অন্য হাসপাতাল/চিকিৎসা কেন্দ্র স্থানান্তরে সহায়তা করা। রোগ মুক্তির পর দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের প্রয়োজনে আর্থিক সহায়তা/যাতায়াত ভাড়া প্রদান এবং পরিবারে পুনৃ:একত্রিকরনে সহায়তা করা।

৮) প্রবেশন কার্যক্রমঃ   সংশ্লিষ্ট আদালত কর্তৃক সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তি তথা আইনের সংস্পর্শে আসা শিশু / কিশোর,  মৃত্যুদন্ড অথবা যাবজ্বীবন কারাদন্ড এবং রাষ্টদ্রোহিতা, বিষ্ফোরক দ্রব্য আইন, অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য সংশ্লিষ্ট আইনে দন্ডপ্রাপ্ত নারী ব্যতীত ১ (এক) বছরের অধিক যে কোন মেয়াদে কারাদন্ড প্রাপ্ত কোন নারী শতকরা ৫০ (পঞ্চাশ) ভাগ  কারাদন্ড করেছেন। বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে প্রথম ও লঘু অপরাধী দন্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের শাস্তি প্রদানস্থগিত রেখে প্রবেশন অফিসারের তত্বাবধানে জিম্বাদার এর হেফাজতে পারিবারিক/সামাজিক পরিবেশে রেখে সংশোধন ও আত্নশুদ্ধির ব্যবস্থা করা। উক্ত ব্যক্তিদের শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষন প্রদান। সাজাপ্রাপ্ত শিশুদের কারাগারে না রেখে কিশোর /কিশোরী উন্নয়ন কেন্দ্রে প্রবেশন অফিসার /সোস্যাল কেইস ওয়ার্কসের তত্ত্বাবধানে কাউন্সেলিং এর মাধ্যমে শিশুর মানসিকতার উন্নয়ন এবং সংশোধন। টাস্কফোর্স কমিটি সহায়তায় কারাগারে বন্দি শিশু /কিশোরদের মুক্তির ব্যবস্থ করাসহ মানসিকতার উন্নয়ন এবং সংশোধন। মুক্তিপ্রাপ্ত কয়েদীদের দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষন। কারাগারে আটক সাজাপ্রাপ্ত নারীদের শর্ত সাপেক্ষে মুক্তি। মুক্তিপ্রাপ্ত কয়েদী/প্রবেশনারদের সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে পুনর্বাসন।

৯) সমন্বিত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষা কার্যক্রমঃ  ভর্তির জন্য আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর আসন খালি থাকা সাপেক্ষে ১ (এক) মাসের মধ্যে ৬ (ছয়) থেকে ৯ (নয়) বছর বয়সী দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের  সংশ্লিষ্ট কমিটির মাধ্যমে ভর্তি প্রক্রিয়া চূড়ান্তকরণ এবং ১৮ (আঠার) বছর  পর্যন্ত সরকারী খরচে আবাসিক থাকা ও খাওয়া এবং লেখাপড়াসহ সব ধরনের সুবিধা প্রদান। অনুর্ধ ১৮ (আঠার) বছর বয়স পর্যন্ত  প্রতিপালন এবং শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান। নিবাসীদের শারীরিক, বুদ্ধিবৃত্তিই ও মানবিক উৎকর্ষ সাধন।  পুর্নবাসন ও স্বনির্ভরতা অর্জনের লক্ষ্যে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা  

১০) সরকারী শিশু পরিবারঃশিশু পরিবারে ভর্তির জন্য আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর আসন খালি থাকা সাপেক্ষে ১ (এক) মাসের মধ্যে ৬ (ছয়) থেকে ৯ (নয়) বছর বয়সী এতিম  অর্থাৎপিতৃহীন বা পিতৃ মাতৃহীন দরিদ্র শিশুকে সংশ্লিষ্ট কমিটির মাধ্যমে ভর্তি প্রক্রিয়া চূড়ান্তকরণ। শিশুর বয়স ১৮ (আঠার) বছর  পর্যন্ত বিভিন্ন সরকারী খরচে আবাসিক থাকা ও খাওয়া এবং এলখাপড়াসহ সব ধরনের সুবিধা প্রদান। অনুর্ধ ১৮ (আঠার) বছর বয়স পর্যন্ত এতিম শিশুদের প্রতিপালন। পারিবারিক পরিবেশে স্নেহ ভালবাসা ও আদর-যত্নের সাথে এতিম শিশুদের লালন পালন। শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান। নিবাসীদের শারীরিক, বুদ্ধিবৃত্তিই ও মানবিক উৎকর্ষ সাধন।  পুর্নবাসন ও স্বনির্ভরতা অর্জনের লক্ষ্যে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা ।

১১) স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের সমূহের নিবন্ধণ ও নিয়ন্ত্রন কার্যক্রমঃক) নিবন্ধন প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন পাপ্তির ২০ (বিশ) কর্মদিবস পর। খ) নামের ছাড়পত্র -প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র প্রাপ্তির ৭ (সাত) কর্মদিবস। গ) কার্যকরী কমিটি অনুমোদন প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর ১০ (দশ) কর্মদিবস। কার্য এলাকা সম্প্রসারণ প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর ৩০ (ত্রিশ) কর্ম দিবস।  ঘ) স্বেচছাসেবী সমাজকল্যাণ সংগঠনের নামকরনের ছাড়পত্র প্রদান ঙ) ১৯৬১ সালের স্বেচ্ছাসেবী সমাজকল্যাণ সংস্থাসমূহ (নিবন্ধন ও নিয়ন্ত্রন) অধ্যাদেশের  ২ (চ) ধারায় বর্ণিত সেবামূলক কার্যক্রমের আগ্রহী চ) নিবন্ধন প্রাপ্ত সংগঠনের গঠনতন্ত্র বা সংশোধিত গঠনতন্ত্র অনুমোদন, সাধারণ ও কার্যকরী পরিষদ অনুমোদন। নিবন্ধন প্রাপ্ত সংগঠনের কার্যএলাকা একাধিক জেলায় সম্প্রসারনের অনুমোদন। নিবন্ধন প্রাপ্ত সংগঠনের কার্যএলাকা একাধিক জেলায় সম্প্রসারনের আবেদন পত্র সদর  দফতরে প্রেরণ ।